ধারাবাহিক রচনা: আমাদের শ্রী অরবিন্দ(পর্ব-৩৪)

শ্রী অরবিন্দ ও শ্রীমায়ের জীবনকে কেন্দ্র করে প্রকাশিত এই ধারাবাহিকটি ইতিমধ্যে পাঠকমহলে সমাদৃত হয়েছে। আমাদের বিভিন্ন শ্রেণীর পাঠকমণ্ডলীর মধ্যে শ্রী অরবিন্দ ও মায়ের জীবনী নিয়ে চর্চা করেন কিংবা শ্রী অরবিন্দ আশ্রমের সঙ্গে যুক্ত পাঠকও রয়েছেন নিশ্চয়ই। তাঁদের প্রতি আমাদের বিনম্র আবেদন যে, ধারাবাহিকটি পড়তে পড়তে কোনোরকম তথ্যভিত্তিক ত্রুটি চোখে পড়লে অনুগ্রহ করে তৎক্ষণাৎ আমাদের দপ্তরে যোগাযোগ করুন, অথবা লেখার শেষে কমেন্টেও জানাতে পারেন। এছাড়া লেখার নীচে দেওয়া লেখকের ফোন নম্বরে সরাসরি করতে পারেন যোগাযোগ। আমরা ত্রুটি মেরামতে সদা সচেষ্ট। –সম্পাাদক

জ্ঞানযোগ

মুকুল কুমার সাহা: এই পর্বে আমরা জ্ঞানযোগ সম্পর্কে কিছু জানবার চেষ্টা করছি। হঠযোগ সাধনার প্রতিষ্ঠা যেমন শরীর ও প্রাণ, রাজযোগের প্রতিষ্ঠা তেমনই চিত্ত অন্যদিকে জ্ঞানযোগের প্রতিষ্ঠা বুদ্ধি। মানুষ জানতে চায়, এই জানার প্রবৃত্তিকে ধরেই জ্ঞানযোগের সাধক এগিয়ে চলেন। জ্ঞানযোগীরা বলেন প্রখর ও সূক্ষ্মদর্শী বুদ্ধির সাহায্যে সচ্চিদানন্দ বা ব্রহ্মের সঙ্গে একাত্মতা অনুভব করা যায়। এটা সরাসরি আত্মজ্ঞান লাভ করে মুক্ত হওয়ার সংক্ষিপ্ত পথ।

হঠযোগে এবং রাজযোগে যেভাবে শরীর, প্রাণ ও মনকে কৃচ্ছ সাধনার মধ্য দিয়ে নিয়ে যেতে হয়, যেভাবে আসন ও প্রাণায়াম ও চিত্তবৃত্তি নিরোধ প্রভৃতি প্রক্রিয়া সাধককে জোর করে করতে হয়, জ্ঞানযোগ সাধনায় সাধককে এইরকম প্রচণ্ড কষ্টকর শারীরিক ও মানসিক ব্যায়ামের কসরতের মধ্য দিয়ে যাওয়ার প্রয়োজন হয় না।

জ্ঞানযোগ সাধনার লক্ষ্য আত্মসাক্ষাৎকার। ভগবানের বহু বিভাব, ব্রহ্মসত্তার যে চৈতন্য জ্ঞানযোগীরা সেটিই লাভ করতে সচেষ্ট হন। শুধু চৈতন্যের দিকেই জোর দেওয়ার কারণে ভগবানের যে বিভাবটি নিষ্ক্রিয় বা যাকে অক্ষরব্রহ্ম বলা হয়, জ্ঞানযোগীরা সেটিই লাভ করতে চেষ্টা করেন। তাঁরা বলেন শরীর, প্রাণ ও মন নিয়ে জীবনের যে খেলা সেটা অসত্য, অনৃতের খেলা, মানুষের গভীরতম যে আত্মবস্তু যা সকল খণ্ডতা সকল স্থূলতার অতীত, যা অনির্বচনীয়, পূর্ণত্ব ও একত্ব, যা সৎ-চিৎ-আনন্দের অনন্ত সমুদ্র সেটিই তাদের লক্ষ্য। ইহাই পরব্রহ্ম এবং ইহা হইতেই স্থূল-সূক্ষ্ম সমস্ত জগতের সৃষ্টি, ইহাতেই সমস্ত জগৎ লয় হয়। জ্ঞানযোগীরা বলেন এই সত্যকে প্রত্যক্ষ করতে পারলে মানুষ মুক্তিলাভ করে। তখন মানুষ হয় জীবমুক্ত মহাপুরুষ। সেই অবস্থা লাভ করলে মানুষকে বাধ্য হয়ে এই পৃথিবীতে বারে বারে সুখ-দুঃখের জীবনে ফিরে ফিরে আসতে হয় না। মানুষটি তখন পূর্ণ স্বাধীনতা পায়।

উৎস- spiritualawareness.co.in

জ্ঞানযোগ সাধনার দুটি ভাগ, প্রথম হচ্ছে বিচার ও বিবেক। কোনটা সত্য নয়, কোনটা ভুল প্রথমেই সেটা জানতে চেষ্টা করা হয়, একেই বিচার বলে। আমার সম্বন্ধে আমি যতটুকু জানতে সক্ষম, অন্য কিছু সম্বন্ধে তেমনটি জানা আমার পক্ষে সম্ভব নয়। তাই বিচার শুরু হয় আমাকে দিয়েই। আমার মধ্যে সত্য বস্তু কী? সত্য অর্থ সৎ– যা ছিল, আছে, থাকবে। যা নষ্ট হয় না বা ধ্বংস না। আমাদের শরীর, প্রাণ ও মন সমস্তই ধ্বংস হয়ে যায়। তাই শরীর, প্রাণ ও মন সত্য নয়। এগুলি ছাড়াও আমাদের আরো একটি সত্তা আছে, যা সৎ বা সত্য– এই বোধ যখন হয়, তখন জাগে বিবেক। বিবেক এক সহজ প্রেরণা, যা সত্য ও মিথ্যার পার্থক্য দেখিয়ে দেয়। বিবেক সত্য বস্তুর আভাস দেয়। আভাস কেন? না, সত্য বস্তু বুদ্ধিগ্রাহ্য নয়। বুদ্ধির দ্বারা কিছুটা আভাস পাওয়া যায় সেই সত্য চৈতন্যের।

জ্ঞানযোগের পরের ধাপ হচ্ছে সেই পরম সত্যকে উপলব্ধি করতে প্রয়াস করা।

জ্ঞানযোগীরা বলেন শ্রবণ, মনন ও নিদিধ‍্যসন– এই তিনটি জ্ঞানযোগের সাধন অঙ্গ। প্রথমে আত্মতত্ত্ব শ্রবণ করতে হয়। কী সেই আত্মা? কী সেই সত্য? মুক্ত মহাপুরুষের মুখ থেকে সেই সব শুনতে হয়। তারপর মনন। আমি স্থূল শরীর নই, আমি সূক্ষ্ম শরীরও নই, আমি সাক্ষী চেতনা। মনকে চিন্তাকে সর্বদা এই ভাবনার উপর অর্পণ করে তার মধ্যেই ডুবে যেতে হয়। সংক্ষেপে বলতে গেলে এই প্রচেষ্টাকেই মনন বলে। মননের সাহায্যে অগ্রসর হওয়ার পর সাধক অপর সমুদয় বিষয় হতে মনকে সরিয়ে “আমি সাক্ষী মাত্র” এই চিন্তায় মনকে সমাহিত করার চেষ্টা করেন। এটাই জ্ঞানযোগের তৃতীয় সাধন– নিদিধ‍্যসন।

ক্রমাগত এই পরম সত্যের কথা ভাবতে ভাবতে, সমুদয় বিষয় চিন্তা হতে মনকে সরিয়ে নিতে থাকলে দেহ, প্রাণ ও মনের মিথ্যা মরীচিকা ক্রমশ স্তিমিত হয়ে আসতে থাকে, ক্রমশ জাগ্রত হয়ে ওঠে শ্বাশ্বত গুহাহিত আত্মা। তখন সাধক জগতের জ্ঞান, ইন্দ্রিয়-গ্রামের জ্ঞান হতে নির্বিশেষ মুক্তিলাভ করে কৈবল্যপ্রাপ্তি, ব্রহ্মসিদ্ধি লাভ করেন, একে নীর্বিকল্প সমাধিও বলা হয়।

পঞ্চত্রিংশ পর্ব আগামী রবিবার)

লেখকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন- 8584063724

https://agamikalarab.com/2020/07/14/conception-on-raj-yoga/

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s